কিভাবে ওল দিয়ে গরুর মাংস রান্না করা হয়

রান্নায় স্বাদের বৈচিত্র্য আনার জন্য প্রায় প্রতিটি রাঁধুনি অপ্রান চেষ্টা করে। আসলেই ব্যাপারটা ও তাই। প্রতিদিন তো একই খাবার ভাল লাগে না। তাই তো আজ আমি একটি আলাদা রেসিপি দিচ্ছি। রেসিপির নাম হল- ওল দিয়ে গরুর মাংস রান্না। অনেকে অভিযোগ করে যে, ওল তো মুখে ধরে, ব্যাপারটা আসলে তা না। একটু যত্ন করে রান্না করলেই মুখেও ধরে না আবার খেতেও বেশ সুস্বাদু। আর ওলের গুনের কথা নতুন করে নাইবা বললাম।

ওল দিয়ে গরুর মাংস রান্না

ছবি -১ : ওল দিয়ে গরুর মাংস রান্না

 

চলুন রান্নার উপকরন গুলো দেখে নেইঃ

উপকরনঃ

  • গরুর মাংস-১ কেজি
  • ওল-১ কেজি,
  • আদা বাটা-১ চা চামুচ,
  • রসুন বাটা- ১ চা চামুচ,
  • পিঁয়াজ- ৫-৬টি,
  • জিরা বাটা- ১চা চামুচ,
  • দারচিনি-৩-৪টি,
  • লং-৩-৪টি,
  • সাদাফল-৪-৫টি,
  • গোলমরিচ-৫-৭টি,
  • কালোফল- ২টি,
  • বস-১টি,
  • তেল- পরিমান মত,
  • হলুদ- পরিমান মত,
  • গুড়া মরিচের গুড়া -পছন্দমত।
  • লবন- স্বাদ মত।

 

তো এবার চলুন দেখে নেয়া যাক প্রস্তুত প্রনালী ।

ওল ভেজে নেয়া:

প্রথমে ওল টিকে ছোট ছোট চার কোনা করে কেটে নিতে হবে(৩নং ছবির মত)।

ওল - Ol

ছবি – ২ : ওল – Ol

 

ওলের ছোট ছোট টুকরা

ছবি – ৩ : ওলের ছোট ছোট টুকরা

 

এরপর পানি দিয়ে ধুয়ে কোন চালুনি বাটিতে ছেঁকে তুলে নিন। দেখবেন হাতে যেন না লাগে তা না হলে হাত চুলকাবে। এরপর কড়াই এ পানি গরম করতে দিন। তাতে সামান্য লবন ও হলুদ দিন।(লবনের ফলে মুখে ধরা কমে যাবে আর হলুদ ওলগুলো কালো হতে দিবেনা। সাধারণত গরম পানি পেলে ওলের রং কালো হয়)। পানি একটু গরম হলে তাতে কেটে রাখা ওলগুলো দিন এবং পানি ফুটানো পর্যন্ত ভাব দিন। (৪ নং ছবির)

ছোট ছোট ওলের টুকরা পানিতে ধোয়া হচ্ছে

ছবি – ৪ : ছোট ছোট ওলের টুকরা পানিতে ধোয়া হচ্ছে

 

পানি ভাল ভাবে ফুটতে থাকলে ওলগুলো ছাঁকনি দিয়ে ছেঁকে পানি থেকে উঠিয়ে নিন। এরপর ঠাণ্ডা পানিতে ধুয়ে নিন।

 

সেদ্ধ ওল

ছবি – ৫ : সেদ্ধ ওল

 

তারপর ওলগুলোতে স্বাদমত লবন, গুড়ামরিচের গুড়া ও হলুদ দিয়ে মেখে নিন(৬ নং ছবির মত)।

 

ওল ভাজির জন্য প্রস্তুত

ছবি – ৬ : ওল ভাজির জন্য প্রস্তুত

 

এরপর চুলোয় একটি ফ্রাইপ্যান বা কড়াই এ তেল দিন এবং ওলগুলো মাঝরি আঁচে ভেঁজে নিন(৭ নং ছবির মত)

 

ওল ভাজা হচ্ছে

ছবি – ৭ : ওল ভাজা হচ্ছে

 

ভাজার পর ওলগুলোর রং (৮ নং ছবির মত) হবে।

 

ভাজি করা ওল

ছবি – ৮ : ভাজি করা ওল

 

আপনি চাইলে তখনি একটি ওলের টুকরো খেয়ে দেখতে পারেন 🙂  ভাজা ওল খেতে ভালোই লাগে । এই গেল ওলের ব্যবস্থা। আসুন এবার গরুর মাংসের ব্যবস্থা করি ।

গরুর মাংস প্রস্তুত করন:

গরুর গোস

ছবি – ৯ : গরুর গোস

 

ধুয়ে রাখা গরুর মাংসে সব মসলা গুলো এক এক করে দিন(১০ নং ছবির মত)।

 

গরুর গোসে প্রয়োজনীয় মসলা দেয়া হচ্ছে

ছবি – ১০ : গরুর গোসে প্রয়োজনীয় মসলা দেয়া হচ্ছে

 

এরপর প্রেসার কুকারে উঠিয়ে দিন এবং পরিমান মত তেল দিন। তারপর প্রেসারকুকারের ঢাকনা বন্ধ করে দিন এবং প্রায় ৫-৬ টি শিস নিন। আপনি চাইলে কড়াই এ মাংস রান্না করে নিতে পারেন। আমি প্রেসারকুকার ব্যবহার করেছি। এতে মাংস তাড়াতাড়ি সেদ্ধ হয়। তারপর ৫-৬ টি শিস দেওয়া পর দেখতে হবে মাংস সেদ্ধ হয়েছে কিনা। যদি সেদ্ধ হয়, তাহলে ৫-৬ মিনিট মাংসগুলো কষিয়ে নিন। মাংস কষানো হলে তাতে ভেঁজে রাখা ওলগুলো দিন এবং পরিমান মত পানি দিয়ে কিছুক্ষণ রান্না করুন।(১০ নং ছবির মত)

গরুর মাংসে ভাজা ওল দেয়া:

পাতিলে ওল ও গরুর গোস

ছবি -১১ : পাতিলে ওল ও গরুর গোস

 

পানি শুকিয়ে একটু তেল বের হলে চুলা থেকে নামিয়ে নিন। একটু ঝোল রাখবেন নয়তো ওলগুলো শুকিয়ে যাবে(১১ নং ছবির মত)

 

তৈরি হয়ে গেল ওল দিয়ে গরুর মাংস।

ছবি – ১২ : তৈরি হয়ে গেল ওল দিয়ে গরুর মাংস।

 

তৈরি হয়ে গেল ওল দিয়ে গরুর মাংস। নিজেই একটু খেয়ে দেখুন। সুন্দর একটি বাটিতে সাজিয়ে ভাত, পরোটা, খিচুড়ি বা পোলাও এর সাথে পরিবেশন করুন ওল দিয়ে গরুর মাংস।

ভাল লাগলে শেয়ার করবেন । আর সবায় ভালো থাকবেন 🙂

Related Post

পারফেক্ট সাদা পোলাও রান্নার রেসিপি... পোলাও একটি মোগলাই খাবার। তাই একে বিভিন্ন মানুষ, বিভিন্ন ভাবে রান্না করে। তবে বেশি উপকরন দিয়ে রান্না করা ভারী পোলাও আমাদের স্বাস্থের জন্য কতটা উপকারী স...
প্রেসারকুকারে সাধারন ইলিশ রান্নার রেসিপি... মাছে ভাতে বাঙ্গালী দের একটি গর্ব পদ্মার ইলিশ মাছ। এই মাছের স্বাদ এতই অতুলনীয় যে, যে যেভাবেই রান্না করুক না কেন তাঁর স্বাদের কোন পরিবর্তন হয় না। কিন্তু...
কিভাবে ভিন্নধর্মী তরমুজের জুস বানাবো... বেশ গরম পড়েছে। এই গরমে শরবতের প্রয়োজনটা নতুন করে বলার কিছু নেই। আজ আমি আপনাদের কাছে এমন এক জুস নিয়ে এসেছি যা বাচ্চা দের খুব পছন্দের এবং এই জুস  বানানো...
মাংস পুলির রেসিপি এদিকে শীত কাল এসেছে, অপর দিকে ঘরে ঘরে পড়ে গেছে পিঠা খাওয়ার ধুম। শীত কালে পিঠার মজা যেন দ্বিগুণ হয়। তবে পিঠা সাধারনত এলাকা ভিত্তিক হয়। বিভিন্ন এলাকায় ব...

You may also like...

2 Responses

  1. সুচেতা says:

    সাদা ফল, কালো ফল কি?

    • Md Shariar Sarkar says:

      সাদাফল বালতে সাদা এলাচ কে বোঝায় যার ইংরেজি নাম White Cardamom আর কালো ফল হল কালো এলাচ একে ইংরেজিতে ডাকা হয় Black Cardamom নামে 🙂

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*