বাংলাদেশে eSIM: ই-সিম সম্পর্কে আপনার যা জানা দরকার

সম্প্রতি ই-সিম মোবাইল প্রযুক্তির পরবর্তী ধাপ হিসেবে তরঙ্গ তৈরি করছে। ইসিম আসলে কি, এবং কিভাবে আমরা বাংলাদেশে ইসিম ব্যবহার করতে পারি? বাংলাদেশে eSIM সম্পর্কে আপনার যে সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানা দরকার তা নীচে দেওয়া হল।wRg


eSIM ই-সিম  কি?

এমবেডেড-সিম বা eSIM হল একটি সিম কার্ড যা ইলেকট্রনিকভাবে একটি মোবাইল ফোনে ম্যানুয়ালি লাগানো ছাড়াই প্রোগ্রাম করা যায়। এটি একটি সাধারণ সিমের মতোই কাজ করে কিন্তু এর জন্য কোনো ফিজিক্যাল কার্ডের প্রয়োজন হয় না। শুধুমাত্র eSIM সাপোর্ট করে এমন ডিভাইস প্রয়োজন।

eSim

eSim

আপনি কি বাংলাদেশে ই-সিম ব্যবহার করতে পারবেন?

জিপি বা গ্রামীণফোন ১ মার্চ ২০২২ তারিখে বাংলাদেশে প্রথম আনুষ্ঠানিকভাবে ইসিম পরিষেবা চালু করেছে।

আপনি আন্তর্জাতিক অপারেটর দিয়েও বাংলাদেশে ইসিম ব্যবহার করতে পারবেন।  ইন্টারনেটে ডেটা প্যাকেজ এবং প্ল্যান রয়েছে যা ব্যবহার করে বাংলাদেশিরা eSIM অ্যাক্সেস করতে পারবেন।

আমি যদি eSIM ব্যবহার করি, তাহলে কি আমাকে একটি নতুন মোবাইল নম্বর দেওয়া হবে?

এটি শুধুমাত্র আপনি যে অপারেটর ব্যবহার করার পরিকল্পনা করছেন তার উপর নির্ভর করে। কিছু আন্তর্জাতিক অপারেটর eSIM এর সাথে ব্যবহার করার জন্য একটি নতুন ফোন নম্বর বরাদ্দ করে কিন্তু কিছু করে না।

আমি কি eSIM ব্যবহার করে কল করতে পারি?

আপনি যদি বাংলাদেশে eSIM ব্যবহার করার জন্য একটি আন্তর্জাতিক অপারেটর ব্যবহার করেন, তাহলে আপনি শুধুমাত্র মোবাইল ডেটা ব্যবহার করতে পারবেন। কল করতে পারবেন না।

eSIM পরিষেবা কি ব্যয়বহুল?

eSIM যেকোনো বাংলাদেশি অপারেটরের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক রোমিং সুবিধা ব্যবহার করে। তাই এটি মোবাইল ডেটার জন্য খরচ বেশ ব্যয়বহুল হবে। বাংলাদেশী অপারেটরের পাশাপাশি ইএসআইএম সমর্থন করে এমন আন্তর্জাতিক অপারেটরের কাছ থেকেও চার্জ নেওয়া হয়। তাই বুঝায় যায় এটি অতিরিক্ত ব্যয়বহুল।

 আমার ফোন কি ই-সিম চালাতে পারে?

খুব কম ডিভাইস বর্তমানে eSIM সাপোর্ট করে। এর মধ্যে Apple ডিভাইস যেমন iPhone XR, iPhone 11 Pro, iPhone 12 এবং 13-এ বিল্টইন eSIM সমর্থন রয়েছে। Samsung Galaxy S20, S21, Note 20 এবং Galaxy Fold এর সংস্করণের পাশাপাশি Google Pixel 3, 3a, 4, 4a, 5, 5a এবং 6 ProeSIM সমর্থন করে।

বাংলাদেশে আমরা সবাই ফিজিক্যাল সিম কার্ড ব্যবহার করি। একটি প্রশ্ন উঠতে পারে: কেন আমরা ই-সিম ব্যবহার করব?

বেশিরভাগ ই-সিম সমর্থিত ডিভাইসে আমরা একটি মেনুতে গিয়ে বা একটি QR কোডের একটি ছবি তোলার মাধ্যমে আমাদের অপারেটর বা পরিষেবা পরিকল্পনা পরিবর্তন করতে পারি। এর জন্য আমাদের দোকানে গিয়ে আর ফিজিক্যাল সিম কিনতে হবে না। এটি একটি ফিজিক্যাল সিম কার্ডের চেয়ে ভালো কারণ এটি অনেক সুবিধা প্রদান করে। ই-সিম মোবাইলের সাথে কমপ্যাক্ট অবস্থায় থাকে।

এটি ভৌত ​​সিম কার্ডের একটি ছোট সংস্করণ যা এখন ফোনগুলিকে একটি মোবাইল নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্ত করে৷ একটি ই-সিম এবং একটি ফিজিক্যাল সিমের মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য পার্থক্য হল, সাধারণ সিম কার্ডের বিপরীতে, একটি ই-সিম স্থায়ীভাবে ডিভাইস বা ডিভাইসের মাদারবোর্ডের সাথে সংযুক্ত থাকে। এছাড়াও, এর মাধ্যমে মোবাইল অপারেটরদের পরিচালনা খরচও কমে যাবে। যেহেতু ফিজিক্যাল সিম বিক্রি করার খরচ থাকবে না তাই এ সংক্রান্ত খরচও থাকবে না।

এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা। দেখা যাক কত দ্রুত ই-সিম আমাদের সবার নাগালের মধ্যে চলে আসে।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!