অফিস এর আগের ভার্সন এবং ২০১০

আগের ভার্সনের চাইতে অফিস ২০১০ আরো বেশি রোল-ভিত্তিক। কর্মজীবীদের বিভিন্ন ধরনের রোল যেমন- Recourse and Development Professional, বিপণন কর্মী এবং মানব সম্পদ ইত্যাদির উপর ভিত্তি করে ফিচারগুলো সজ্জিত করা হয়েছে এই অফিস ওয়ার্ড এর ভার্সনটি ।

মাইক্রোসফট অফিস ২০১০ এ ISO/IEC 29500; 2008 এর জন্য আপডেটেড সাপোর্ট অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে যা Office Open XML (OOXML) ফাইল ফরমেটের আর্ন্তজাতিক প্রমিত সংস্করণ। অফিস ২০১০ স্যুটটি ECMA-376 এর জন্য রিড সাপোর্ট, ISO/IEC 29500 Transitional এর জন্য রিড/রাইট সাপোর্ট এবং ISO/IEC 29500 Strict এর জন্য রিড সাপোর্ট প্রদান করে। এটি Open Document Format (ODF) 1.1 কে সাপোর্ট করে যা একটি OASIS Standard.

Microsoft Office 2010

Microsoft Office 2010

এবারের ফিচারগুলোতে একটি বিল্ট-ইন স্ক্রিন ক্যাপচার টুল, একটি ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভাল টুল, একটি প্রটেকটেড ডকুমেন্ট মোড, নতুন স্মার্টআর্ট টেম্পলেটসমূহ এবং অথোর পারমিশন যুক্ত করা হয়েছে যা আগের ভার্সন গুলতে অনুপস্থিত । এবং ২০০৭ এর ‘অফিস বাটন’ টি এবার মেনু বাটন দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়েছে যেটি একটি ফুল-উইন্ডো ফাইল মেনুর প্রতিনিধিত্ব করছে । এর নাম দেয়া হয়েছে ব্যাকস্টেজ ভিউ (Backstage View) যার মাধ্যমে প্রিন্টিং শেয়ারিং এর ফাংশন গুলো আরো সহজে আ্যকসেস করা যায় । সকল অফিস অ্যাপ্লিকেশনেই উন্নত রিবন ইন্টারফেস রয়েছে । অফিস অ্যাপ্লিকেশনগুলোতে আরো আছে উইন্ডোজ সেভেন এর ফাংশনাল জাম্পলিস্টসমূহ যা কিনা সাম্প্রতিক আইটেমগুলোতে খুব সহজে অ্যাকসেস সুবিধা দিয়ে থাকে এবং অ্যাপ্লিকেশন সংশ্লিষ্ট কাজগুলো করার সুযোগ করে দেয়। অফিস ২০১০ এ অন্তর্ভূক্ত ফিচারগুলোর মধ্যে রয়েছে:

>> সকল অ্যাপ্লিকেশন জুড়ে Rebone Interface এবং Back Stage View
>> Background Removal Tool
>> Later Styling
>> ‘Microsoft Equation Editor 3.0’ এর পরিবর্তে সকল অ্যাপ্লিকেশনে ‘ Word 2007 Equation Editor’ এর অন্তর্ভূক্তি
>> নতুন স্মার্টআর্ট (SmartArt) টেম্পলেটসমূহ
>> নুতন Text Imaging Interface
>> Screen Capturing Clipping টুলসমূহ
>> Life Collaboration ফাংশনসমূহ উইন্ডোজ সেভেন এ জাম্পলিস্ট সমূহ
>> পাোয়ার পয়েন্ট ২০১০ এ নতুন অ্যানিমেশনসমূহ

মাইক্রোসফট অফিস ২০১০ এ একটি নতুন ফিচার হলো ‘Outlook Social Connector’ যেটি মাইক্রোসফট আউটলুক এর ভেতর থেকেই ব্যবহারকারীদেরকে তাদের সোশ্যাল নেটোয়ার্কে সংযুক্ত হোয়া এবং সেখান থেকে আপডেটসমূহ গ্রহণ করার সুবিধা দিয়ে থাকে। ব্যবহারকারীরা যখন তাদের ই-মেইলগুলো দেখবেন তখন তারা যে ব্যক্তির সাথে যোগাযোগ করছেন তার একটি নাম, ছবি এবং টাইটেল পাবেন। এই নতুন ফিচারটির মাধ্যমে আপকামিং অ্যাপয়েন্টমেন্ট সমূহো দেখা যাবে এবং ব্যবহারকারীরা বন্ধুদের অনুরোধ পাঠাতে পারবে। বর্তমানে আউটলুক সোশ্যাল কানেক্টর ফিচারটি কেবল ফেইসবুক, লিংকডইন, মাইস্পেস এবং উইন্ডোজ লাইভ ম্যানেঞ্জার কে সমর্থন করছে।

Related Post

মাইক্রোসফ্ট অফিস সম্পর্কে কিছু ধারণা... আমি আশা করছি আমরা প্রথমে মাইক্রোসফ্ট অফিস প্রোগ্রাম শিখবো । তবে তার আগে মাইক্রোসফ্ট অফিস সম্পর্কে কিছু জানা দরকার । এটি আসলে একটি প্যাকেজ প্রোগ্রাম এব...

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *